নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে মাদারীপুর মুক্ত দিবস উদযাপিত

0
97

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
আজ ১০ ডিসেম্বর মাদারীপুর মুক্ত দিবস। বাঙ্গালী মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে পাকিস্তানি সেনাদের আত্মসমর্পণ শুধুমাত্র মাদারীপুরেই হয়েছে। ১৬ ডিসেম্বর অন্যান্য জায়গায় পাকবাহিনী আত্মসমর্পণ করেছে মিত্রবাহিনীর হাতে। তবে ১০ ডিসেম্বর মাদারীপুরে সরাসরি সম্মুখযুদ্ধে বিজয়ের মাধ্যমে মুক্ত হয়। জেলার মুক্তিযোদ্ধারা জানান, ১৯৭১ সালের ২২ এপ্রিল পাকবাহিনী বিমান থেকে মাদারীপুরে গোলাবর্ষণ করে। ২৪ এপ্রিল সড়ক পথে শহরে প্রবেশ করে এ.আর.হাওলাদার জুট মিলে স্থাপন করে হানাদার ক্যাম্প। সেখানে নির্যাতন ও অসংখ্য মানুষকে হত্যা করে গণকবর দেয় পাকিস্তানের হানাদাররা। এরপর শহর ছেড়ে পাকবাহিনী চলে যাবার সময় ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের সদর উপজেলার সমাদ্দারে মুক্তিযোদ্ধারা ব্রিজ ভেঙ্গে দিয়ে রাস্তা বন্ধ করে চারদিক থেকে আক্রমণ শুরু করে। ৩দিন ও ২ রাত সম্মুখযুদ্ধের পর ১০ ডিসেম্বর মাদারীপুর হানাদারমুক্ত হয়। হানাদারমুক্ত হবার আগে শত্রæর বাংকারে গ্রেনেড হামলা করতে গিয়ে পাকবাহিনীর গুলিতে শহীদ হন সর্বকনিষ্ঠ মুক্তিযোদ্ধা ১৪ বছর বয়সী সরোয়ার হোসেন বাচ্চু। সূর্য যখন পশ্চিম দিকে ঢলে পড়ে তখন হানাদার মুক্ত হয় মাদারীপুর জেলা।

মাদারীপুর মুক্ত দিবস উপলক্ষে জেলা প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, জেলা আওয়ামীলীগ ও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো নানা কর্মসূচী পালন করে। সকালে মাদারীপুর পুরান বাজার আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলণ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, বর্ণাঢ্য বিজয় র‌্যালী ও শহীদ সরোয়ার হোসেন বাচ্চুর কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং দোয়া মোনাজাত করা হয়। এ সময় আওয়ামীলীগ, কৃষকলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগ, বীর মুক্তিযোদ্ধা সহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পরে এক গণভোজের আয়োজন করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here